নতুন বছরে পুরানো ঝামেলা!

মোহাম্মদ আলী জনি বিডি.টুনসম্যাগ.কম কামাল সাহেব একটু হাই কোয়ালিটির রাগী মানুষ। তিনি সচরাচর কোন অনিয়ম পছন্দ করেন না, তার সামনে যে ব্যাক্...

মোহাম্মদ আলী জনি
বিডি.টুনসম্যাগ.কম

কামাল সাহেব একটু হাই কোয়ালিটির রাগী মানুষ। তিনি সচরাচর কোন অনিয়ম পছন্দ করেন না, তার সামনে যে ব্যাক্তিই অপরাধ করুক না কেন, তিনি প্রকাশ্যে রাগ ঝেড়ে বসেন। সে এলাকার নামকরা সন্ত্রাসী কিংবা বিশিষ্ট শ্রেণীর যে কেউ হউক না কেন। তবে কামাল সাহেব একটা জায়গায় এখনো ধৈর্য্যর পরিচয় দিয়েই যাচ্ছে, সেই মানুষটি শত অনিয়ম করার পরও তিনি তার উপর পরিপূর্ণ রাগ ঝাড়তে পারছেন না। স্ত্রীর কাছে তার রাগ চুপসানো বেলুনের মত। চরম রাগী স্ত্রীর কাছে গেলে তিনি রাগ করা তো দূরের কথা রীতিমত বৃদ্ধ মানুষের মত ঢরে ভাঁজ হয়ে যান। তিনি যতই কিপ্টামি করেন তার স্ত্রী ততই বেহিসাবি খরচা পাতি করতে থাকে।
বছর শেষে কামাল সাহেবের বেতন বাড়বে তা হিসাব না করতেই স্ত্রী বেতন বৃদ্ধির ফর্মুলা স্বরূপ তার হাতে লম্বা একখান কেনাকাটার ফর্দ ধরিয়ে দিলেন। কামাল সাহেব এ যাত্রায় স্ত্রীর সাথে তেমন সুবিধা করতে না পেরে রাগের ঠেলায় নিজের মাথার সংখ্যা ঘরিষ্ঠ চুলের বেশ কয়েকটা নগদে ছিঁড়ে ফেললেন। সেদিন তিনি না খেয়েই অফিস করলেন। অফিসে ঢুকেই তিনি নতুন করে বিড়ম্বনায় পড়লেন, অফিসের ফাজিল টাইপের কলিগরা তার মাথার চুলের প্রতি সু-নজর দিয়ে অনুমান করে বলেই ফেললেন, দেখ সবাই আমাদের কামাল ভাইয়ের মাথার উপর দিয়ে মনে হয় কিছুক্ষণ আগে সিডর ধ্বংশাত্বক এ্যাকশন চালিয়ে চলে গেছে, তা না হলে দুই দিন আগে এই মাথায় যে কয়টা চুল ছিল আজ তার অর্ধেকটিও নেই কেন? 
কামাল সাহেব এবারের মত তার কলিগদের ঐতিহাসাক রাগ ঝেড়ে প্রকাশ্যে ঠান্ডা করে দেয়। ইদানীং তিনি বাসায় বউয়ের সাথে মেজাজ দেখিয়ে তেমন একটা সুবিধা করতে পারেননা, এ নিয়ে বেশ চিন্তিত তিনি। মাস শেষ হতেই বেতনের সব টাকা বউয়ের হাতে তুলে দেয়, তারপরও স্ত্রীর প্যানপ্যানানি কমে না। এবারও নতুন বছরের সব টাকা তিনি বউয়ের হাতে তুলে দিলেন, শুধু বেতনের টাকা বললে ভুল হবে বোনাসের টাকাও দিয়ে দিলেন। চিন্তা করলেন, বউয়ের কাছে চাইলেই হয়ত কিছু টাকা দিবে, তাছাড়া সব টাকা স্ত্রীকে না দিলে হয়ত নতুন বছরের শুরুতেই বাসায় একটা তালগোল পাকিয়ে দিবে, আর তার স্ত্রীর এ সমস্থ কার্মকান্ড দেখে আশে পাশে বাসার মানুষগুলো মুখ চাপিয়ে হাসবে। বছরের প্রথম দিন বন্ধুর বাসায় বিশাল অনুষ্ঠান, স্ব-পরিবারে কামাল সাহেবকে দাওয়াত দেওয়া হলো। কামাল সাহেব ফুরফুরে মেজাজে বউকে আলমারি থেকে পাজামা-পাঞ্জাবি বের করে দিতে বললেন, বউ কোন রকম টু-শব্দ না করেই পাজামা-পাঞ্জাবি বের করে দিল। পাজামা খুলেই কামাল সাহেব জোড়ে একখান চিৎকার দিলেন, তার চিৎকারে আশে-পাশে ব্যাপক মানুষ জড়ো হলো। এতদিন তারা শুধুমাত্র কামাল সাহেবের স্ত্রীর চিৎকারই শুনেছে আজ কামাল সাহেবের আত্নচিৎকার শুনে তারা তাকে উদ্ধার করতে মূলত জড়ো হলো। কামাল সাহেব সবাইকে তেমন কিছু হয়নি বলে হাসিমুখে পাঠিয়ে দিলেন। এবার স্ত্রীকে দেখালো, 'আড়ং থেকে কেনা আমার দামি পাজামাটা যে ইঁদুরে কেটেকুটে বিধ্বস্থ করে দিয়েছে, বলি কি সেই খবর কি তোমার আছে, সারা দিন করটা কি শুনি, সন্ধ্যায় বন্ধুর দাওয়াতে কি পড়ে যাব শুনি?' স্ত্রী খামোশ বলে কামাল সাহেবকে চুপ করতে বলল, তা না হলে কিন্তু আত্নচিৎকারে এলাকা গরম করারও হুমকি দিল। এবার কামাল সাহেব নতুন একটা পাজামা কেনার জন্য স্ত্রীর নিকট নরম সুরে কিছু টাকা চাইলেন। স্ত্রী একটা টাকাও না দেওয়ার জ্বলাময়ী হুংকার দিল, আর বন্ধুর বাসায় প্রয়োজনে লুঙ্গি পড়ে যাওয়ার ইঙ্গিত দিল। কামাল সাহেব ফের আত্যাধিক রাগে তার মাথায় অবশিষ্ট চুল ধরে জোড়ে একখান টান দিলেন। এ যাত্রায় তার মাথায় আর অবশিষ্ট একটা চুলও থাকলো না, সব গুম হইয়া গেল। সকাল গেল অভিমানে দুপুরে অভিমান ভাঙ্গালো তার স্ত্রী, বিকালে কামাল সাহেব লুঙ্গি পড়ে তার বন্ধুর অনুষ্টানে যেতে সম্মত হল, তবে তিনি স্ত্রীর কাছে বিনীত অনুরোধ জানালো অনুষ্টানে যেতে পাড়ি এক শর্তে যেহেতু এরই মধ্যে আমার মাথার চুল ভ্যানিশ হয়ে গেছে, তাই কেউ যাতে আমারে টাকলু উপাধি দিতে না পাড়ে সে জন্য আমি ক্যাপ পড়েই দাওয়াতে যাবো, এবার কামাল সাহেব তার কথায় হ্যাঁ সূচক জবাব দিল ঠিকই তবে আদরের সহিত স্বামীকে ঠিকঠাকভাবে ক্যাপ পড়িয়ে দিতে তিনি মোটেও ভূল করেননি।

এই বিভাগে আরো আছে

রম্য গল্প 265990355770726093

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

সঙ্গে থাকুন

জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক

নেটয়ার্ক

  • আঁকা-আঁকি আহ্ববান

    আপনার আঁকা, মজার মজার লেখা, ছবি আঁকার কলা-কৌশল, শিল্পীর জীবনী, প্রবন্ধ, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অথবা প্রদর্শনীর সংবাদ টুনস ম্যাগে ছাপাতে চাইলে পাঠিয়ে দিন। আমাদের ইমেইল করুন- bangla@toonsmag.com এই ঠিকানায়।

    সহায়তা করুন

    item