হুমায়ূন আহমেদ রসবোধ নিয়ে জন্মেছিলেন : ইশতিয়াক আহমেদ

বিডি.টুনসম্যাগ.কম :  এ সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় গীতিকবি, নির্মাতা, লেখক ইশতিয়াক আহমেদ । জন্মেছেন ২২ নভেম্বর। নারায়ণগঞ্জ জেলায়। জাতীয় বিশ্ববিদ...

বিডি.টুনসম্যাগ.কম : এ সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় গীতিকবি, নির্মাতা, লেখক ইশতিয়াক আহমেদ। জন্মেছেন ২২ নভেম্বর। নারায়ণগঞ্জ জেলায়। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় হতে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক-উত্তর। দীর্ঘদিন দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার সাপ্তাহিক রম্য সাময়িকী ’বিচ্ছু’ সম্পাদনার সাথে যুক্ত ছিলেন। বর্তমানে দৈনিক আমাদের সময় পত্রিকায় সিনিয়র সাব এডিটর হিসেবে কাজ করছেন। সাংবাদিকতার পাশাপাশি গল্প, উপন্যাস, ছড়া, রম্যগল্প প্রভৃতি ক্ষেত্রে প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে আসছেন। এ পর্যন্ত তার ৭টি বই প্রকাশিত হয়েছে। তার লেখালেখিসহ বিভিন্ন বিষয়ে নিবিড় আলাপচারিতা টুনস ম্যাগের পাঠকদের সামনে উপস্থাপন করেছেন নাদিম মজিদ 

নাদিম মজিদ : লেখালেখিতে আপনি কিভাবে আসলেন?
ইশতিয়াক আহমেদ : কোনো বিশেষ আয়োজন করেনা। আমাদের বাসায় ছোটবেলা থেকেই দৈনিক পত্রিকা রাখা হতো। ১৯৯৫ সালের কোনো একদিন আমাদের হকার বাসায় একটা ছোটদের পত্রিকা দিয়ে গেল। নাম ’ছোটদের কাগজ’। তো সেটা পড়ে দেখে খুবই ভালো লাগলো। তখন আমার বয়স ১৩ কী ১৪। আমার বয়সীরাই লেখে। আমার মনে হলো, চেষ্টা করে দেখি।
তো একটা লিখলাম এবং ছাপা হয়ে গেল। সেই-ই শুরু। 

নাদিম মজিদ : আপনি অনেক শাখায় লেখালেখি করেন। কোন শাখায় লেখালেখি করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন?
ইশতিয়াক আহমেদ : অবশ্যই গল্প।

নাদিম মজিদ : লেখালেখির মাধ্যম হিসেবে রম্যচর্চাকে আপনি কিভাবে দেখেন? এটি পাঠকের উপর কিভাবে প্রভাব ফেলে?
ইশতিয়াক আহমেদ : খুবই ভালো। ভাবনার জায়গাটা লেখায় শতভাগ ফুটিয়ে তুলতে পারলে অবশ্যই ভালো। কিন্তু আমাদের এখানে জোর করে হাসানোর প্রবণতা আছে। হিউমার কম। বিষয়টা হিউমারাস হলে এবং পারিপার্শ্বিক চিত্র লেখার মধ্যে ফুটিয়ে তুলতে পারলে প্রভাবটা ভালো।

নাদিম মজিদ :  বর্তমানে অনেক পত্রিকা আলাদা করে রম্য সাময়িকী প্রকাশ করছে। তবুও শিবরাম চক্রবর্তী, সৈয়দ মুজতবা আলীর মত রম্য-সাহিত্যিক তৈরি হচ্ছে না। কারণ হিসেবে আপনি কি ভাবছেন?
ইশতিয়াক আহমেদ : যদি প্রশ্নটা সাম্প্রতিক তরুণদের উদ্দেশ্য করে না বলা হয়, তবে বলতে পারি এই দেশে সেই ক্ষমতা নিয়ে হুমায়ূন আহমেদ সেই হিউমার এবং রসবোধ নিয়ে জন্মেছিলেন এবং লিখেছিলেন।
আর এখনকার কথা বললে, আমি বলবো সময় দেয়া উচিত। এখনই তো তরুণদের মধ্যে শিবরাম বা মুজতবা আলীর বৈশিষ্ট খোঁজা ঠিক হবেনা। সময় দেয়া উচিত। তারা তো একদিনে তৈরি হয়নি। আর তৈরি না হবার বিষয় হলে, বুঝতে হবে সেসব লেখকের মানুষ বা পারিপার্শ্বিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা কম বা ধৈর্য্য কম। 

নাদিম মজিদ : জাতীয় দৈনিকের রম্য সাময়িকীগুলোতে দেখা যায়, সচরাচর চলতি বিষয় নিয়ে সংখ্যা তৈরি করা হয়। ফলে আমাদের চিরন্তন সমস্যা গুলো রম্যচর্চায় ঠিকমত উঠে আসছে না। বিষয়টি আপনি কিভাবে দেখছেন?
ইশতিয়াক আহমেদ : ওই যে বললাম, পর্যবেক্ষন ক্ষমতা বাড়াতে হবে। সঙ্গে বাড়াতে হবে পড়াশুনা।

অসীম চন্দ্র রায়ের আঁকায় ইশতিয়াক আহমেদ

নাদিম মজিদ : অনেকদিন ধরে লেখালেখি, ফটোগ্রাফি, সম্পাদনার সাথে জড়িত আছেন। আপনি নিজেকে কোন পরিচয় দিতে পছন্দ করেন?
ইশতিয়াক আহমেদ : সাংবাদিক বিষয়টাই গুরুত্ব দেই আপাতত। সেটা সম্পাদকের দিকেই যায়। কারণ, কাজটা সম্পাদনাই।

নাদিম মজিদ : লেখালেখি নিয়ে আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?
ইশতিয়াক আহমেদ : আমার কোনো পরিকল্পনা নাই। আমি একজন পরিকল্পনাহীন মানুষ।

নাদিম মজিদ : আপনি অবসর সময় কিভাবে কাটান?
ইশতিয়াক আহমেদ : গান শুনি। বই পড়ি। সিনেমা দেখি।

নাদিম মজিদ : তরুণ রম্য-লেখকদের প্রতি আপনার উপদেশ?
ইশতিয়াক আহমেদ : লেখালেখি করার আগে তিনটা জিনিস মাথায় রাখতে হবে। পড়া। পড়া এবং পড়া।

নাদিম মজিদ : বিশ্বের প্রথম অনলাইন কার্টুন ম্যাগাজিন টুনস ম্যাগ। এ ম্যাগাজিনের পাঠকদের উদ্দেশ্যে কিছু বলুন।
ইশতিয়াক আহমেদ : শুভকামনা। আর এর সঙ্গে থাকার আহবান জানানো ছাড়াতো কিছু বলার নেই।

নাদিম মজিদ : কষ্ট করে সাক্ষাৎকার দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
ইশতিয়াক আহমেদ : আপনাকেও ধন্যবাদ।

এই বিভাগে আরো আছে

সাক্ষাৎকার 8579553166844837041

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

সঙ্গে থাকুন

জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক

নেটয়ার্ক

  • আঁকা-আঁকি আহ্ববান

    আপনার আঁকা, মজার মজার লেখা, ছবি আঁকার কলা-কৌশল, শিল্পীর জীবনী, প্রবন্ধ, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অথবা প্রদর্শনীর সংবাদ টুনস ম্যাগে ছাপাতে চাইলে পাঠিয়ে দিন। আমাদের ইমেইল করুন- bangla@toonsmag.com এই ঠিকানায়।

    সহায়তা করুন

    item